বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সৈনিক সুশান্ত দাস গুপ্ত

সিলেট বিডি নিউজ
প্রকাশিত ২৮, এপ্রিল, ২০২১, বুধবার
বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সৈনিক সুশান্ত দাস গুপ্ত

নাজমুল ইসলাম হৃদয় : সুশান্ত দাস গুপ্ত বঙ্গবন্ধুর আদর্শে উজ্জীবিত আওয়ামীলীগের সৈনিক এবং তরুণ প্রজন্মের বাতিঘর। তিনি নৈতিক গুণসম্পন্ন দক্ষ সাংগঠনিক শক্তির অধিকারী, ব্যক্তিত্বসম্পন্ন একজন আওয়ামীলীগের নিবেদিত প্রাণ। তিনি তাঁর রাজনৈতিক কর্মতৎপরতা, প্রগতিশীল চিন্তাভাবনা, মুক্তিযুদ্ধের চেতনাধারণকারী, সৃষ্টিশীল কাজে উদ্যোগী, অন্যায়ের বিরুদ্ধে আপোষহীন, ক্রীড়া সংগঠক এবং সামাজিক ন্যায়পরায়ন ব্যক্তি হিসেবে আজকের এই সময়ে একজন যোগ্য রাজনৈতিক নেতার উদাহরণ।

তাঁর নেতৃত্বদানের ক্ষমতা, নেতৃত্বের গুনাবলী, সৎচ্চরিত্রাবলী এবং রাজনৈতিক জীবনের বিশাল কর্মযজ্ঞই প্রমাণিত করে তিনি রাজনৈতিক মাঠের একজন কর্মদক্ষ কর্মী এবং আওয়ামীলীগের প্রাণ। ছাত্রাবস্থা থেকেই জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের রাজনৈতিক জীবনের আদর্শকে লালন করে তিনি তাঁর রাজনৈতিক জীবন গড়েছেন। তিনি জামাত-বিএনপির জেল জুলুম অত্যাচারকে সহ্য করে প্রেত্মাতাদেরকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে আজকে জনপ্রতিনিধি হিসেবে পরিচিত ।

সুশান্ত দাস গুপ্ত নৈতিক গুনাবলী অসাধারণ। তাঁর এই নৈতিক গুনাবলীর জন্যই আজকের রাজনীতির মাঠে তিনি একজন জননন্দিত, জনপ্রিয়, জনপ্রতিনিধি হিসেবে সকলের নিকট পরিচিত। তাঁর এই জনপ্রিয়তা থাকার পরও তিনি কখনো ক্ষমতার অপব্যবহার করেনি, অহংকার করেননি। আমি এমন একজন নেতার কর্মী হতে পেরে আমার অহংকার হয়, আমি গর্ব করি।

তিনি দীর্ঘ রাজনৈতিক জীবনে কখনো দলএবং দলের নেতাকর্মীর সাথে বিশ্বাস ভঙ্গ করেননি। তাঁর পরিবারের প্রতিটি সদস্যের এবং তাঁর দেহের রক্তে মাংসে ষোলআনা আওয়ামীলীগ বিরাজমান। হবিগঞ্জের কোনো নেতা এমনকি তাঁর রাজনৈতিক চরম বিরোধী শক্তিও বলতে পারবে না, তিনি কখনও ওয়াদা ভঙ্গ করেছেন। তিনি শহরের এ প্রান্ত থেকে ঐ প্রান্তে আওয়ামীলীগের মিছিল মিটিং এবং বিভিন্ন সামাজিক অনুষ্ঠানে শহরের উন্নয়ন কর্মকান্ডে এবং আওয়ামীলীগ যুবলীগ, ছাত্রলীগ, স্বেচ্চাসেবকলীগকে সুসংগঠিত করতে ভোর থেকেই ছুটে বেড়ান। রাজনীতিতে তাঁর এই কর্মদক্ষতার নেতৃত্ব এই সময়ের আওয়ামীলীগের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

তিনি স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলন, বিএনপি-জামায়াত বিরোধী আন্দোলন এর রাজনীতির চরম দুঃসময়ে তিনি ছিলেন অগ্রসৈনিক। স্বৈরাচার, জামায়াত-বিএনপি এর সময়ে সুশান্ত দাস গুপ্ত জেল জুলুম নির্যাতনসহ্য করে আজকের আলোচিত নাম সুশান্ত দাস গুপ্ত হয়েছেন।

তিনি জেলার প্রতিটি উপজেলা, থানা, ইউনিয়ন এবং বিভিন্ন ইউনিটে বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে এবং আওয়ামীলীগ সভানেত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার ভিশনকে বাস্তবায়ন করার লক্ষ্যে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। তিনি একটি শক্তিশালী সংগঠন প্রতিষ্টায় বিশ্বাসী। তাঁর হৃদয়ে বাংলাদেশ, চেতনায় মুক্তিযুদ্ধ, আদর্শে বঙ্গবন্ধু, রাজনৈতিক অনুসরনে জননেত্রী শেখ হাসিনা। তিনি আওয়ামীলীগের অত্যন্ত প্রহরী।

ঐক্যবদ্ধ আওয়ামীলীগ গড়ে তুলার লক্ষ্যে, কাউয়া, কুকিল মুক্ত এবং একটি মাদকমুক্ত হবিগঞ্জ , সন্ত্রাসমুক্ত শহর, জঙ্গিবাদমুক্ত প্রজন্ম এবং একটি শক্তিশালী আওয়ামীলীগের হবিগঞ্জ ইউনিট প্রতিষ্টার লক্ষ্যে সুশান্ত দাস গুপ্ত কাজ করে যাচ্ছেন । সুশান্ত দাস গুপ্ত কোন ব্যক্তি নয়, তিনি এখন আওয়ামীলীগের একটি প্রতিষ্ঠান। আওয়ামী লীগের বিশ্বস্থ নিবেদিত প্রাণ। তিনি বঙ্গবন্ধুর সৈনিক। জননেত্রী শেখ হাসিনার সিপাহশালার হাতিয়ার।

সুশান্ত দাস গুপ্ত উড়ন্ত কোন বেলুন নয় যে কাটা লেগে চুপসে যাবে! সুশান্ত দাস গুপ্ত সত্যের লড়াইয়ে এক নির্ভীক আগ্নেয়গিরি।

যে আগুনে সত্যই মূল চালিকা শক্তি, দুর্নীতি, সন্ত্রাস,হাইব্রিড ও রাজাকারের বিরুদ্ধে আপোষহীন নেতৃত্বের নাম সুশান্ত দাস গুপ্ত।

সুশান্ত দাস গুপ্তরা প্রতিদিন,মাস কিংবা বছরে সৃষ্টি হয়না, শত বছরে এক একজন সুশান্ত দাস গুপ্তের সৃষ্টি হয়। যখন আসে তখন সকল অপরাধের বিপক্ষে বসে।

সুতরাং হামলা মামলা দিয়ে সুশান্ত দাস গুপ্তকে দমিয়ে রাখা যাবে না। সুশান্ত দাস গুপ্ত বঙ্গবন্ধু আদর্শের এক নির্ভীক সৈনিক, যার অতীতের শ্লোগান এখনও রাজপথে কথা বলে।
তাই সকল সাধুরা সাবধান।

 452 total views

শেয়ার করে ছড়িয়ে দিন
error: Content is protected !!