নবীনগরে সন্ত্রাসী হামলার শিকার ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ সভাপতির ভাই কাউছার

সিলেট বিডি নিউজ নেট
প্রকাশিত ২৬, আগস্ট, ২০২১, বৃহস্পতিবার
নবীনগরে সন্ত্রাসী হামলার শিকার ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ সভাপতির ভাই কাউছার

নবীনগর প্রতিনিধিঃ ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার গ্রামীণ সংঘর্ষ এড়াতে বর্তমান সরকারের সর্বোচ্চ মহল থেকে সর্ব নিম্ন মহল নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে।

এই সংঘর্ষ সচরাচর তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে হয়ে থাকে। ২৬শে আগষ্ট বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ৮ ঘটিকায় আলমনগর গ্রামের শালিসকারীদের ডাকে বিচার শালিসে এসে ব্রাহ্মণবাড়িয়া নবীনগর পৌর এলাকার ০১নং ওয়ার্ডের আলমনগর উত্তর পাড়া কবরস্থান সংলগ্ন মোয়াজ্জেম হোসেনের বাড়ি ও দেলোয়ার হোসেনের দোকানে মধ্যবর্তী আলমনগর নবীপুর সড়কে ইভটিজিং সংক্রান্ত জেরে নবীনগর পশ্চিম ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মোঃ আনোয়ার হোসেনের আপন ছোট ভাই নবীপুর গ্রামের মোঃ কাউছার আলম নবীনগর পৌর এলাকা আলমনগর গ্রামের কবির মিয়ার ছেলে সুজন,আমানউল্লাহর ছেলে রনি,আবু মিয়ার ছেলে রুবেল,জাকিরের ছেলে আকিব এর নেতৃত্বে ২০/৩০ জনের সন্ত্রাসী হামলায় গুরুতর আহত হয়ে বর্তমানে ঢাকার একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

সরজমিনে ঘুরে জানা যায়,২৪ শে আগষ্ট মঙ্গলবার পৌর এলাকার আলমনগর গ্রামের অটোরিকশা চালক রুবেলের অটো তে নবীনগর থেকে একজন মেয়ে যাত্রী নবীপুর বাজারে এসে ভাড়া দিতে চাইলে, অটোচালক রুবেল ভাড়া টাকার বদলে মেয়েটির মোবাইল নাম্বার চায়,মেয়েটি মোবাইল নাম্বার দিতে অস্বীকার করায় অটো থেকে থাকা আলমনগরের রমজান মিয়া,রাকিব মিয়া মেয়েটিকে ইভটিজিং করার চেষ্টা করলে পাশে থাকা নবীপুর গ্রামের কয়েকজন ছেলে বাঁধা দিতে গেলে তাদের মধ্যে হাতাহাতি হয়।এঘটনার সুষ্ঠু সমাধানের জন্য উভয় গ্রামের গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ বিচার শালিস ডাকায় আজ বিচার শালিসে যাওয়ার পথে এই ঘটনা ঘটে।

কাউছারের সাথে থাকা প্রত্যোক্ষদর্শী সৈয়দ হোসেন বলেন,কাউছার কে পূর্ব পরিকল্পিতভাবে মারধর করার জন্য ডেকে আনা হয়েছে, তাছাড়া প্রায়ই তারা আমাদের গ্রামের লোকজনের উপর অত্যাচার করে থাকে।

এমন অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনার জন্য দুঃখ প্রকাশ করে সাবেক নবীনগর উপজেলা ছাত্রলীগ সভাপতি আব্দুল্লাহ আল রোমান বলেন, কাউছার আমাকে মুঠোফোনে তার উপর হামলা হয়েছে জানানোর সাথে সাথে আমি ঘটনাস্থলে গিয়ে তাকে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা পাঠানোর ব্যবস্থা করেছি,এমনকি আমি প্রতি মূহুর্তে তার শারীরিক খুঁজ খবর নিচ্ছি।

আহত অবস্থায় কাউছার কে চিকিৎসার জন্য দেখতে যাওয়া পৌর আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক মোঃ জামাল হোসেন বলেন, সকলের সমন্বয়ে বিচার শালিস করা হলে এমনটা ঘটত না,উক্ত বিচার শালিসে আমাকে রাখার জন্য কাউছার চেষ্টা করে ছিল।

সন্ত্রাসী হামলার শিকার মোঃ কাউছার বলেন, নবীপুর ও আলমনগরের কিছু ছেলেদের মধ্যে ইভটিজিং সংক্রান্ত বিষয়ে ঝগড়া হলে তা সমাধানের জন্য আমরা উভয়ে গ্রামের গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ সামাজিক বিচার শালিস করে সমাধান করার জন্য শালিসিস্থলে যাওয়ার পথে আমার উপর সন্ত্রাসী হামলা হয়। কখনো কল্পনাও করেনি এমন হামলার শিকার হব, এটার সুষ্ঠু সমাধানের জন্য চিকিৎসা শেষে আইনের আশ্রয় নিব।

এবিষয়ে কোন অভিযোগ হয়ে জানতে নবীনগর থানার অফিসার ইনচার্জ আমিনুর রশিদ কে মুঠোফোনে জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি জানান,এখনও লিখিত অভিযোগ পায়নি,অভিযোগ পেলে তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

 62 total views

শেয়ার করে ছড়িয়ে দিন
error: Content is protected !!