সন্ত্রাস দমনে সেই তালেবানের সঙ্গে কাজ করবে যুক্তরাষ্ট্র

সিলেট বিডি নিউজ নেট
প্রকাশিত ২, সেপ্টেম্বর, ২০২১, বৃহস্পতিবার
সন্ত্রাস দমনে সেই তালেবানের সঙ্গে কাজ করবে যুক্তরাষ্ট্র

ডেস্ক নিউজ: সন্ত্রাস দমনে সেই তালেবানের সঙ্গে কাজ করবে যুক্তরাষ্ট্র

সন্ত্রাস দমনে আফগানিস্তানে হামলা চালিয়েছিল যুক্তরাষ্ট্র। সন্ত্রাসের মদদ দেওয়ায় ২০০১ তালেবানকে ক্ষমতাচ্যুত করেছিল তারা। ২০ বছর পর আফগানিস্তান থেকে মার্কিন সেনারা ফিরে গেছেন। এখন যুক্তরাষ্ট্র বলছে, নিষিদ্ধঘোষিত ইসলামিক স্টেটের (আইএস-কে) জঙ্গি দমনে তারা তালেবানের সঙ্গে কাজ করতে পারে। খবর এএফপির।

আফগানিস্তান থেকে সেনা প্রত্যাহারের পর গতকাল বুধবার মার্কিন সেনাদের সর্বোচ্চ পদধারী জয়েন্ট চিফস অব স্টাফের চেয়ারম্যান মার্ক মিলি এ ইঙ্গিতই দিলেন। সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, আইএসের শাখা ইসলামিক স্টেট খোরাসান প্রভিন্সের (আইএস-কে) জঙ্গি দমনে ভবিষ্যতে তালেবানের সঙ্গে কাজ করতে পারে যুক্তরাষ্ট্র।

যুক্তরাষ্ট্রের সেনা প্রত্যাহারের শেষ দিনগুলোয় সবচেয়ে বড় হামলাটি এই আইএস-কে চালিয়েছিল। আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুল বিমানবন্দর এলাকায় এই হামলায় ১৭০ জনের বেশি মানুষ নিহত হয়েছে। মার্কিন সেনা নিহত হয়েছেন ১৩ জন। এই হামলার পর মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন ঘোষণা দিয়েছিলেন, হামলার প্রতিশোধ নেওয়া হবে। এরপরই আইএসের স্থাপনা লক্ষ্য করে ড্রোন হামলা চালায় যুক্তরাষ্ট্রের বাহিনী। হামলার পর বলা হয়েছিল, এতে আইএস-কের পরিকল্পনাকারী নিহত হয়েছেন। এরপর গতকাল আইএসের বিষয়টি আবারও সামনে আনলেন মার্ক মিলি। তবে সন্ত্রাস দমনে কবে নাগাদ তালেবানের সঙ্গে কাজ হতে পারে, তা উল্লেখ করেননি তিনি।

আফগানিস্তান যুদ্ধ প্রসঙ্গে মার্ক মিলি বলেন, যুদ্ধ কঠিন। এটা বিদ্বেষপূর্ণ, এটা নিষ্ঠুর। এটা ক্ষমার অযোগ্য। তিনি বলেন, ‘যখন আমরা বিগত ২০ বছরের দিকে ফিরে তাকাই, আর যখন আমরা বিগত ২০ দিনের হিসাব করি, তখন এটি যন্ত্রণা দেয় এবং ক্ষোভের জন্ম দেয়।’

এদিকে বিবিসির খবরে বলা হয়েছে, ওই সংবাদ সম্মেলনে তালেবানকে ‘নিষ্ঠুর’ হিসেবে আখ্যা দিয়েছেন মার্ক মিলি। তিনি বলেন, এটা এখনো স্পষ্ট নয়, তালেবানের কোনো পরিবর্তন হবে কি না।

তালেবানের সহযোগিতায় লোকজন সরিয়ে নেওয়ার বিষয়ে মার্ক মিলি বলেন, ‘আমরা খুব স্বল্প পরিসরে তালেবানের সঙ্গে কাজ করেছি যাতে যত বেশিসংখ্যক মানুষে সরিয়ে নেওয়া যায়।’ তিনি বলেন, ‘একটি যুদ্ধে আপনাকে সেটাই করতে হবে, যেটাতে অভিযান ও বাহিনীর ঝুঁকি কমে। যুদ্ধে আপনি যেটা করতে চান, তার চেয়ে জরুরি এই ঝুঁকি কমানো।’

 78 total views

শেয়ার করে ছড়িয়ে দিন
  • 1
    Share
error: Content is protected !!