সিলেট বিডি নিউজ.নেট
প্রকাশিত ৮, নভেম্বর, ২০২১, সোমবার

মামলা নং-৯, তারিখ: ১৩/১০/২০২০ইং এবং ঐদিনই পুলিশ মাজেদা বেগমকে গ্রেফতার করে। পরবর্তীতে ২ দিনের পুলিশ রিমান্ডে নিয়ে আসলে মাজেদা বেগম ১নং আসামি সাদিকুলের অবস্থান সম্পর্কে পুলিশের কাছে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য প্রদান করলেও অজ্ঞাত কারণে পুলিশ ঘাতক সাদিকুলকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়নি।

এদিকে পুলিশের গাফিলতির কথা উল্লেখ করে আলোচিত ও নৃশংশ হত্যার মূল আসামিদের গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে লতিফিয়া ইরশাদিয়া দাখিল মাদ্রাসা ছাত্র/শিক্ষকসহ এলাকাবাসী মিলে গত ১৬ অক্টোবর ২০২০ ইং তারিখে স্থানীয় বৈরাগী বাজারে বিশাল মানববন্ধন করেন।

কিন্তু তারপরও মূল আসামি গ্রেফতার না হওয়ায় একই দাবিতে গত ২১ অক্টোবর ২০২১ইং তারিখে বিশ্বনাথ উপজেলা সদরে আবারো মানববন্ধন করা হয়।

এরই প্রেক্ষিতে গত ২২ অক্টোবর ২০২০ইং তারিখে বিশ্বনাথ থানা পুলিশ অভিযান পরিচালনা করে সুনামগঞ্জের ছাতক উপজেলাধীন বুরাইয়া গ্রামের মৃত আলকাব আলীর ছেলে জামাল হোসেন (৫০)কে গ্রেফতার করে।

কিন্তু পরিতাপের বিষয় হলো এলাকাবাসী ও এই মামলার বাদীর সূত্রমতে গ্রেফতারকৃত বৃদ্ধ জামাল হোসেন এই হত্যা সম্পর্কে কিছুই জানেন না।
এরপর গত ০২ নভেম্বর ২০২০ইং তারিখে এলাকাবাসীর চাপে বাধ্য হয়ে বিশ্বনাথ থানা পুলিশ উক্ত মামলার বাদীর সন্দিন্ধ্য আসামী গুয়াহরি গ্রামের মৃত আজিজুর রহমানের পুত্র গোলাম হোসেনকে গ্রেফতার করে।

পুলিশের সূত্রমতে উক্ত আসামীর সাথে এই হত্যা মামলার পলাতক আসামীদের হত্যা করার পূর্বে এবং হত্যার পরে যোগাযোগের বিষয়ে যথেষ্ট তথ্য প্রমাণ পাওয়া যায়। এদিকে লতিফিয়া ইরশাদিয়া দাখিল মাদ্রাসার ৩য় শ্রেণীর মেধাবী শিশু শিক্ষার্থী রবিউল ইসলামের হত্যাকারীদের গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে গত ৯ নভেম্বর ২০২০ ইং ৪নং তারিখে রামপাশা ইউ/পির বর্তমান ও সাবেক চেয়ারম্যান ও মেম্বারদের স্বাক্ষরিতসহ এলাকার গণ্যমান্য প্রায় ১৫০ জনের নাম ও মোবাইল নাম্বার উল্লেখপূর্বক সিলেট বিভাগীয় কমিশনার বরাবরে একটি স্মারকলিপি প্রদান করা হয়।

কিন্তু তারপরও এই আলোচিত এই হত্যার প্রধান আসামীদের পুলিশ গ্রেফতার করতে ব্যর্থ হয়।

নিহত রবিউলের পরিবার ও এলাকাবাসী পুলিশের ভূমিকা নিয়ে সংশয়ে আছেন। দীর্ঘ ১৩ মাস পরেও তাদের একটাই দাবি প্রকৃত খুনিদের গ্রেফতার করে ফাসিতে ঝুঁলানো হোক।

আলোচিত এই হত্যা মামলার তদন্ত প্রতিবেদনে ধীরগতি ও প্রধান আসামীদের গ্রেফতারের বিষয়ে জানতে চাইলে বিশ্বনাথ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) গাজী আতাউর রহমান প্রতিবেদককে জানান, মামলার তদন্ত চলছে এবং আসামীদের গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।
তদন্ত শেষ হলেই আদালতে প্রতিবেদন দাখিল করা হবে।

এদিকে নিরুপায় হয়ে পুত্র হত্যার বিচার চেয়ে নিহত রবিউলের পিতা দিনমজুর বর্গাচাষী আকবর আলী এই খবরের মাধ্যমে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, পুলিশের আইজি ও সংশ্লিষ্ট সকলের প্রতি আকুল আবেদন করে বলেন, উনার মৃত্যুর আগে যেনো উনি তার নিহত শিশু পুত্রের প্রকৃত খুনিদের বিচার দেখে যেতে পারেন।

পুত্র হারানোর শোকে কাতর আকবর আলী ও তার অসহায় হতদরিদ্র পরিবারের একটাই দাবি ‘মা জননী’ মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আপনি আমাদের জন্য কিছু করেন। আমরা আজ বড় অসহায়।

সর্বশেষ আদালত থেকে প্রাপ্ত খবর অনুযায়ী জানা যায় যে, ৭ নভেম্বর ২০২১ইং তারিখে আলোচিত রবিউল হত্যা মামলার ১নং আসামী সাদিকুর রহমান সাদিকুল সিলেট সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্টেট আমলী আদালত-৩ এ উপস্থিত হয়ে জামিন প্রার্থনা করিলে আদালত জামিন না মঞ্জুর করে জেল হাজতে প্রেরণের নির্দেশ দেন।

 68 total views

শেয়ার করে ছড়িয়ে দিন
error: Content is protected !!